মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মুশফিক-রিয়াদের দৃঢ়তায় ২৪৬ রানের চ্যালেঞ্জ দিল বাংলাদেশ

অনলাইন ডেস্ক | আপডেট: শুক্রবার, অক্টোবর ১৩, ২০২৩

মুশফিক-রিয়াদের দৃঢ়তায় ২৪৬ রানের চ্যালেঞ্জ দিল বাংলাদেশ
বাংলাদেশের টপ অর্ডারের ব্যর্থতা নতুন কিছু নয়। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে সেটার প্রমাণ মিলেছে আবারও। কিউই পেসারদের সামনে নাকাল লিটন দাস, তানজিদ হাসান তামিম ও নাজমুল হোসেন শান্তরা। ৫৬ রানে ৪ উইকেট হারানোর পর বাংলাদেশকে টেনে তোলেন সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম। তারা দুজন দলের রান দুইশ হওয়ার আগে ফিরলেও শেষ দিকে অভিজ্ঞ রিয়াদের দায়িত্বশীল ইনিংসে ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৪৫ রানের পুঁজি পায় বাংলাদেশ।

আজ চেন্নাইয়ের চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নামে টাইগাররা। আগে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। আগে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের হয়ে যথারীতি ইনিংস উদ্বোধনে নামেন লিটন দাস ও তানজিদ হাসান তামিম। তবে শুরুটা ভালো করতে পারেনি টাইগার ওপেনাররা। ইনিংসের প্রথম বলেই সাজঘরে ফিরে গেছেন লিটন।

ট্রেন্ট বোল্টের বলে ম্যাট হেনরির তালুবন্দী হন এ টাইগার ওপেনার। ১ বলে শূন্য রান করেন তিনি। তার বিদায়ে দ্বিতীয় উইকেটে এসেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। তাকে সঙ্গে নিয়ে দলীয় ইনিংসের হাল ধরেন তামিম।

কিন্তু বেশিদূর এগিয়ে যেতে পারেন নি তরুণ এই ওপেনার ১৭ বলে ১৬ রান করে লকি ফার্গুসনের শিকার হন। দলীয় ৪০ রানের দ্বিতীয় উইকেট হারানো বাংলাদেশ ১২তম ওভারে আরো চাপে পড়ে মেহেদী হাসান মিরাজকে হারিয়ে।

ফার্গুসনের করা শর্ট বলে পুল খেলতে গিয়ে থার্ড ম্যানে ক্যাচ দিয়ে বসেন মিরাজ। দলীয় ৫৬ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশ শিবিরে আসা যাওয়ার মিছিল শুরু হয়। ১৩তম ওভারে টাইগারদের চাপে রেখে সাজঘরে ফেরেন নাজমুল হোসেন শান্ত। ৮ বলে ৭ রান করে গ্লেন ফিলিপসের শিকার হন তিনি। তবে পঞ্চম উইকেট জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় টাইগাররা। দুই অভিজ্ঞ ব্যাটার মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসানের ৯৬ রানের জুটিতে ম্যাচের হাল ধরে বাংলাদেশ।

তবে দলীয় ১৫২ রানে সাকিব ব্যক্তিগত ৪০ রান করে সাজঘরে ফেরেন। মুশফিকুর রহিম দারুণ অর্ধশতক তুলে ইনিংস এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন, কিন্তু ম্যাট হেনরির বলে ব্যক্তিগত ৬৬ রান করে বোল্ড হন তিনি। তাওহীদ হৃদয়ও ক্রিজে নেমে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ফলে আবারো ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে টাইগাররা। ১৫২/৪ থেকে ১৮০ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে অলআউটের দ্বারপ্রান্তে চলে যায় বাংলাদেশ।

তবে অষ্টম উইকেট জুটিতে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও তাসকিন আহমেদের ব্যাটে ২০০ রান পার করে টাইগাররা। শেষ দিকে অভিজ্ঞ রিয়াদের ৪১ রানের ইনিংসে লড়াকু পুঁজি পায় বাংলাদেশ। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২৪৫ রান। টাইগারদের হয়ে সর্বোচ্চ ৬৬ রান করেন মুশফিক। কিউইদের হয়ে ৩টি উইকেট নেন লকি ফার্গুসন। 
0 Comments